শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশি তাণ্ডব

0 348

►সাংবাদিক পেটানোয় এক এএসআই সাময়িক বরখাস্ত
►শনিবার বিক্ষোভ, ২৫ ফেব্রুয়ারি সমাবেশ, ১১ মার্চ মহাসমাবেশের ঘোষণা জাতীয় কমিটির

সুন্দরবনের পাশে রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের প্রতিবাদে জাতীয় কমিটির ডাকা গতকাল বৃহস্পতিবারের আধাবেলা শান্তিপূর্ণ হরতালে রাজধানীর শাহবাগে মারমুখী পুলিশ সাংবাদিকসহ বেশ কয়েকজনকে রাস্তায় ফেলে অমানুষিকভাবে পিটিয়েছে। পুলিশের মুহুর্মুহু টিয়ার শেল এবং রাবার বুলেটে ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি ও গণজাগরণ মঞ্চের অন্যতম সংগঠক লাকী আক্তারসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদ ও সুন্দরবন রক্ষার দাবিতে নতুন তিনটি কর্মসূচি ঘোষণা করেছে জাতীয় কমিটি। পুলিশি হামলার ঘটনায় বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও ছাত্রসংগঠন তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

পুলিশি হামলার শিকার হওয়াদের একজন মিজানুর রহমান। বয়স পঞ্চাশের ওপর। বাসা রাজধানীর জুরাইনে। এলাকায় পানি নেই তাঁর ডাক পড়ে, এলাকায় ময়লার ভাগাড়ের দুর্গন্ধে প্রাণ যায় তাঁর ডাক পড়ে, মধ্যরাতে কেউ অসুস্থ হয়ে রক্ত পাচ্ছে না তাঁর ডাক পড়ে। মানুষের জন্য নিবেদিতপ্রাণ এই সমাজকর্মী স্বেচ্ছায় সুন্দরবন রক্ষায় তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির আন্দোলনে আছেন শুরু থেকেই। কালও সকাল থেকে হরতালের সমর্থনে লিফলেট বিলি করছিলেন। পুলিশ তাঁকে বেধড়ক পিটিয়েছে শাহবাগের রাস্তায় ফেলে। গায়ে কিল-ঘুষি ও লাথি মেরেছে। মারতে মারতে তাঁর গায়ের টি-শার্টও ছিঁড়ে ফেলেছে। টি-শার্ট ছিঁড়েই ক্ষান্ত হয়নি পুলিশ, তাঁকে নিয়ে যায় শাহবাগ থানার ভেতর। সেখানে তিনি জ্ঞান হারালে তাঁকে পাঠানো হয় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসায় জ্ঞান ফিরলে আবারও তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় শাহবাগ থানায়। তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক।

একই অবস্থা মাহতাবউদ্দিন আহমেদের। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এই ছাত্র কোনো রাজনৈতিক সংগঠনের কর্মী নন। সুন্দরবন রক্ষার আন্দোলনে প্রথম থেকেই তিনি সোচ্চার। কিছুদিন আগে হাত ভেঙে গিয়েছিল। সেই ভাঙা হাত নিয়ে এসেছিলেন শাহবাগে। পুলিশ তাঁকে এমনই বেধড়ক পিটিয়েছে যে তাঁর ডান পা নড়াতে পারছেন না। তাঁর স্বজনরা জানিয়েছে, তাঁর ডান পা ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কাই বেশি। এক্স-রে করানো হয়েছে। তবে এক্স-রে প্রতিবেদনে কী এসেছে, তা স্বজন ও আন্দোলনকারী কেউ জানে না। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে তাঁকে আবারও শাহবাগ থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

হরতালকারীদের মারধরের ফুটেজ তুলতে গিয়ে পুলিশের ব্যাপক মারধরের শিকার হয়েছেন বেসরকারি টিভি চ্যানেল এটিএন নিউজের সাংবাদিক এহসান বিন দিদার ও ক্যামেরা পারসন আব্দুল আলীম। আহত আব্দুল আলীম ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে সাংবাদিকদের জানান, পুলিশকে তাঁর পেশাগত পরিচয় জানানোর পরও তারা মারধর করেছে। পুলিশ তাঁর পিঠ ও মাথায় লাঠি দিয়ে আঘাত করেছে। গায়ে কিল-ঘুষি ও লাথি মেরেছে। এ ঘটনায় শাহবাগ থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) এরশাদকে বরখাস্ত করেছে পুলিশ। পুলিশের টিয়ার শেলে মাথায় আঘাত পেয়েছেন কালের কণ্ঠ’র প্রধান আলোকচিত্র সাংবাদিক শেখ হাসান।

হরতালের সময় মিজানুর রহমান, মাহতাব, ছাত্র ইউনিয়ন নেতা হাসিব মোহাম্মদ আশিক, গানের দল বেতালের তপু ও জুয়েলসহ যে পাঁচজনকে আটক করে পুলিশ থানায় নিয়ে গিয়েছিল, রাত ৮টার দিকে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, সকাল থেকেই শান্তিপূর্ণভাবে হরতাল পালন হচ্ছিল। হরতালকারীরা ছিল শান্ত। কোথাও কোনো যানবাহন তারা ভাঙচুর করেনি। কাউকে হরতাল পালন করতে বাধ্যও করেনি। রাজধানীর শাহবাগ এলাকা ছিল হরতালকারীদের দখলে। সেখানেই পুলিশ ব্যাপক মারমুখী ছিল। রাজপথ থেকে হরতালকারীদের হটাতে পুলিশ অর্ধশতাধিক টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে। ব্যাপক পরিমাণ রাবার বুলেট ছোড়ে। এ ছাড়া হরতাল পালনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ জলকামানও ব্যবহার করে। হরতালকারীদের সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনাও ঘটে। রাজধানীর অন্য কোথাও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় রিকশাচালক (৬০) সালাম শেখ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘শুনতাছি ভার্সিটির স্টুডেন্টরা সুন্দরবন বাঁচাইতে হরতাল করতাছে। কিন্তু পুলিশ তাগো যেভাবে মারল তা চউক্ষে দেহন যায় না। শত শত গুলি করেছে। ’

আহতদের মধ্যে মিজানুর রহমান, মাহতাব উদ্দিন, উম্মে হাবিবা বেনজির, কাকন বিশ্বাস, লাকি আক্তার, নাসির উদ্দিন প্রিন্সসহ অন্তত ১০ জন বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে।

আগেই হরতাল আহ্বানকারীরা জানিয়েছিল, পথচারী, সাইকেল, রিকশা, ভ্যান, অ্যাম্বুল্যান্স, গণমাধ্যমের গাড়ি, বিদ্যুৎ-ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি, কাঁচাবাজার ও ওষুধের দোকান এ হরতালের আওতামুক্ত থাকবে।

সরেজমিনে রাজধানী ঘুরে দেখা গেছে, হরতালের ভোর ৬টা থেকে সকাল সাড়ে ১১টা পর্যন্ত রাস্তাঘাট প্রায় ফাঁকা ছিল। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রাস্তায় বাড়তে থাকে গণপরিবহন। তবে রাস্তায় ব্যক্তিগত যানবাহন অনেক কম ছিল। নিউ মার্কেট থেকে ধানমণ্ডি মিরপুর রোড, পল্টন থেকে শাহবাগ, মিরপুর ১০ নম্বর থেকে ফার্মগেট পর্যন্ত গাড়ির চাপ কম ছিল। মিরপুর, মোহাম্মদপুর, লালবাগ, সূত্রাপুর, তেজগাঁও, পল্টন, শাহবাগসহ বিভিন্ন পয়েন্টে পিকেটিং করে বিভিন্ন বামপন্থী রাজনৈতিক সংগঠনের নেতাকর্মী ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যরা।

তিন কর্মসূচি : এদিকে হরতালে পুলিশি হামলার প্রতিবাদে আগামী শনিবার সারা দেশে বিক্ষোভ সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে তেল-গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি। হরতাল চলাকালে গতকাল দুপুরে প্রেস ক্লাবের সামনে জাতীয় কমিটির সদস্যসচিব আনু মুহাম্মদ এ ঘোষণা দেন। তিনি আরো বলেন, সুন্দরবন রক্ষার দাবিতে ২৫ ফেব্রুয়ারি রাজপথে সমাবেশ হবে। আর ১১ মার্চ খুলনায় উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষকে নিয়ে মহাসমাবেশ হবে।

আনু মুহাম্মদ বলেন, ‘বুধবার রাত থেকেই হরতাল সমর্থকদের নানাভাবে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছিল। হরতালের সমর্থনে আজ (গতকাল) সকালে শাহবাগ এলাকায় শান্তিপূর্ণ মিছিলে হামলা করে পুলিশ। এতে কয়েকজন আহত হয়। ভয়ভীতি ও হামলা সত্ত্বেও এই আন্দোলন চলবে। ’

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত এক সমাবেশে জাতীয় কমিটির নেতারা বলেন, অবিলম্বে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণকাজ বন্ধ করতে হবে। এ বিদ্যুৎকেন্দ্রটি সুন্দরবনকে ধ্বংস করবে। সরকারকে বৈজ্ঞানিক তথ্য-উপাত্ত দিয়ে বারবার হুঁশিয়ার করলেও বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের কাজ বন্ধ হয়নি।

সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন জাতীয় গণফ্রন্টের সভাপতি টিপু বিশ্বাস, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি প্রমুখ।

এক এএসআই বরখাস্ত : ফুটেজ নিতে গিয়ে শাহবাগ এলাকায় পুলিশের হামলায় টিভি চ্যানেল এটিএন নিউজের ক্যামেরা পারসন আব্দুল আলীম ও সাংবাদিক এহসান বিন দিদারকে মারধরের ঘটনায় শাহবাগ থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) এরশাদকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার মারুফ হোসেন সরদার কালের কণ্ঠকে বলেন, হরতালে সাংবাদিকদের মারধরের অভিযোগের প্রাথমিক তথ্যের ভিত্তিতে শাহবাগ থানার এএসআই এরশাদকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত চলছে।

এদিকে রাবার বুলেট ছোড়ার কথা অস্বীকার করলেও সাংবাদিকদের মারধরের কথা স্বীকার করেছে পুলিশ। জানতে চাইলে শাহবাগ থানার ওসি আবু বক্কর সিদ্দিকি বলেন, সাংবাদিকদের মারধরের ঘটনায় একজন পুলিশ সদস্যকে চিহ্নিত করা হয়েছে। ফুটেজে তাকে মারধর করতে দেখা গেছে। চিহ্নিত এএসআইকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এই ঘটনার সঙ্গে আরো কেউ জড়িত থাকলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে ভুল-বোঝাবুঝির কারণে এ ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার অধিকতর তদন্ত চলছে।

হামলার নিন্দা : পুর্িলশের লাঠিচার্জের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন জাতীয় কমিটির নেতারা।

সিপিবির সভাপতি কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক কমরেড সৈয়দ আবু জাফর আহমদ এক বিবৃতিতে শান্তিপূর্ণ হরতালে পুলিশের হামলা ও গ্রেপ্তারের তীব্র নিন্দা করেছেন।

বিবৃতিতে নেতারা বলেন, এভাবে দমন-পীড়ন করে আন্দোলন ঠেকানো যাবে না। জনগণের সমর্থনে সুন্দরবন রক্ষার আন্দোলন আরো তীব্র হয়ে উঠবে।

পুলিশের হামলাকে ‘ন্যক্কারজনক’ আখ্যা দিয়ে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন। ছাত্র ইউনিয়ন সভাপতি লাকী আক্তার ও সাধারণ সম্পাদক জিলানী শুভ যৌথ বিবৃতিতে বলেন, সরকার রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র বাতিলের দাবিতে জনগণের চলমান আন্দোলনকে ভয় দেখিয়ে স্তিমিত করার জন্য রাষ্ট্রের পুলিশ বাহিনীকে আন্দোলনকারীদের ওপর লেলিয়ে দিয়েছে। হামলার নিন্দা জানিয়েছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টও।

এদিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি জানান, হরতালের সমর্থনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে প্রগতিশীল ছাত্রজোট। এই সমাবেশে ওই হামলার নিন্দা জানানো হয়।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.