ইলিয়টগঞ্জ দক্ষিনে ব্যক্তিগত অর্থায়নে কাঠের সেতু নির্মান করে দৃষ্টান্ত স্থাপন আলী মিয়াজী

0 62

 

 

||নিজস্ব প্রতিনিধি||

নিজ গ্রামের কোমলমতি শিশুরা যখন গ্রামের ভিতরের খালের উপর সেতু না থাকায় স্কুল মাদ্রাসায় যেতে সমস্যা হচ্ছে। ঠিক তখনই ৬০ হাজার টাকা ব্যায়ে ৭০ ফিট দৈর্ঘ্য ও ৫ফিট প্রসস্থ কাঠের বেইলী ব্রীজ তৈরী করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন হাজ্বী আলী আহাম্মেদ মিয়াজী নামের এক তরুণ সমাজসেবক।

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার ইলিয়টগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়নের বাসরা গ্রামের ভিতরে একটি খালের উপর কোনরকমের সেতু না থাকায় ওই গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাসরা মদিনাতুল উলুম নূরানী মাদ্রাসার কোমলমতি শিক্ষার্থীসহ মসজিদের মুসল্লীসহ এলাকার সাধারণ জনগনের যাতায়তে সমস্যা হচ্ছিলো অনেকদিন যাবত।

এই সমস্যার সমাধানের লক্ষে ওই গ্রামের তরুণ রাজনৈতিক, প্লাবন ভূমিতে মাছ চাষের উদ্যোক্তা হাজ্বী আলী আহাম্মেদ মিয়াজী নিজ অর্থায়নে ৬০ হাজার টাকা ব্যয়ে ৭০ ফুট দৈর্ঘ ও ৫ ফুট প্রসস্থ একটি কাঠের সেতু তৈরী করে দেন। সেতুটি শুক্রুবার বিকেলে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়।

সেতু উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, আলী আহম্মেদ মিয়াজী। গ্রামবাসীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলো, জামাল মাস্টার, সামিম খান, সালেহ্ আহমেদ মিয়াজী, মাদ্রাসার মুহতামিম মোস্তাফিজুর রহমান, বাসরা স্টেশন জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাসুদুর রহমান, রমিজ সরকার, জয়নাল আবেদীন সরকার, নয়ন পাটোয়ারী।

হাজ্বী আলী আহাম্মেদ মিয়াজী বলেন, সমাজের প্রতিটি মানুষেরই উচিৎ সরকারী বরাদ্ধের দিকে তাকিয়ে না থেকে নিজেদের সমস্যা সমাধানে নিজেদেরকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। আমি অর্থ দিয়েছি কিন্তু গ্রামবাসীর সার্বিক অংশগ্রহনে সেতুটি বাস্তবায়ন হয়েছে। এখন আর গ্রামের শুশু শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে যেতে সমস্যা হবে না। আমি এ কাজ করতে পেরে আনন্দিত।

আলী আহাম্মদ মিয়াজীর মতো তরুণা প্রতিটি গ্রামের সমস্যা সমাধানে এভাবে এগিয়ে আসলে সমাজে আর ছোট-খাটো সমস্যার জন্য দূর্ভোগ পোহাতে হবে না সাধারণ গ্রামবাসীদেরকে এমনটাই বলছে স্থানীয়রা।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.